শিক্ষা

শিক্ষানীতি 2020 লাইভ আপডেট: স্নাতক এবার ৪ বছরের কোর্স, মাঝপথে পড়া ছাড়লেও নষ্ট হবে না বছর

বুধবার মন্ত্রিসভার বৈঠকে ছাড়পত্র পেল নয়া জাতীয় শিক্ষানীতি ৷ এর ফলে দেশে পড়াশুনার ধরনে বড়সড় বদল আসতে চলেছে ৷ সেপ্টেম্বর-অক্টোবরে নতুন শিক্ষাবর্ষ শুরুর আগেই এই নীতি প্রণয়ন করতে চায় কেন্দ্র ৷ নয়া শিক্ষা নীতিতে স্কুল শিক্ষার সঙ্গে সঙ্গে উচ্চশিক্ষাতেও বড়সড় পরিবর্তন আসতে চলেছে ৷ এবার থেকে স্নাতক অনার্স কোর্স তিন বছরের নয়, চার বছরের ৷

একইসঙ্গে আগে ইঞ্জিয়ারিংয়ের মতো কোর্সের ক্ষেত্রে কোনও পড়ুয়া চুড়ান্ত বর্ষের পরীক্ষা না দিলে পাশ করার কোনও সুযোগই ছিল না ৷ ইঞ্জিনিয়ারিংয়ের কিছু শিক্ষা থাকলেও কোনও ডিগ্রি না পেয়ে পড়ুয়াটি আউট অফ সিস্টেম হয়ে যেত ৷ কিন্তু নয়া শিক্ষা নীতিতে মাঝ পথে পড়া ছাড়ার সঙ্গে সঙ্গে ধাপে ধাপে শিক্ষার মানপত্র পাওয়ারও ব্যবস্থা থাকছে ৷ নতুন নীতিতে এক বছর বাদে সার্টিফিকেট, দুবছর পরে ডিপ্লোমা, তিন বছর কোর্সের পরে একরকম ডিগ্রি সার্টিফিকেট ও চার বছরে কোর্স সম্পূর্ণ করার পর পুরো ডিগ্রি পাওয়ার ব্যবস্থা রাখা হয়েছে ৷

অনেক পড়ুয়া অনেক অসুবিধার কারণে মাঝপথে পড়াশুনা ছেড়ে দিতে বাধ্য হয় ৷ কিন্তু পরে কোর্স কমপ্লিট করতে চাইলে তার সুযোগ থাকে না ৷ জাতীয় শিক্ষা নীতি ২০২০ অনুসারে, স্নাতক না স্নাতকোত্তরে এক বা একাধিকবার বিশেষ শর্তে কোর্স ভেঙে পড়ার সুযোগ থাকছে ৷ কোনও পড়ুয়া মাঝপথে পড়া বন্ধ করার বা পরীক্ষা না দিয়ে নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে ফিরে এসে চাইলে কোর্স কমপ্লিট করতে পারে ৷ সেক্ষেত্রে তাঁকে প্রথম থেকে পড়া শুরু করতে হবে না ৷ এর জন্য প্রত্যেক পড়ুয়ার ক্ষেত্রে বিশেষ অ্যাকাডেমিক ডিজিলকারের ব্যবস্থা করবে কেন্দ্র ৷ নয়া শিক্ষানীতিতে বিষয় বাছার ক্ষেত্রে আগের থেকে অনেক বেশি স্বাধীনতা রয়েছে ৷ পদার্থবিদ্যা, রসায়ন নিয়ে পড়লেও, ফ্যাশন ডিজাইনিং পড়ার সুযোগ থাকবে। এক্ষেত্রে প্রশিক্ষণধর্মী বা বৃত্তিমূলক শিক্ষায় জোর দিতে চাইছে সরকার ৷ অর্থাৎ ডিগ্রির পর পড়ুয়াদের শিক্ষা অনুযায়ী জীবিকা পেতে যাতে কোনও অসুবিধে না হয় ৷ এছাড়া কলেজগুলিকেও ফিনান্সিয়ালি আরও কিছু সুবিধা দেওয়া হবে ৷ গোটা দেশে যে ৪৫ হাজার কলেজ রয়েছে তাতে ২০৩৫ সালের মধ্যে ৫০ শতাংশ এনরোলমেন্টের লক্ষ্যমাত্রা রেখেছে কেন্দ্র ৷ কলেজগুলিকে গ্রেডের উপর ভিত্তি করে স্বশাসন দেওয়া হবে ৷ল’ এবং মেডিক্যাল ছাড়া বাকি সমস্ত উচ্চশিক্ষা প্রতিষ্ঠান একটি নিয়ন্ত্রক সংস্থার ছাতার তলায় আসতে চলেছে। ক্যাবিনেট ব্রিফিংয়ে কেন্দ্রীয় মন্ত্রী প্রকাশ জাভড়েকর ও কেন্দ্রীয় মানবসম্পদ উন্নয়ন মন্ত্রী রমেশ পোখরিয়াল জানান, ‘প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির উপস্থিতিতে বিশেষজ্ঞ কমিটির সুপারিশ মেনে জাতীয় শিক্ষানীতি ২০২০-কে অনুমোদন দিয়েছে মন্ত্রিসভা ৷ গত ৩৪ বছর ধরে দেশের এডুকেশন পলিসির কোনও সংস্করণ করা হয়নি ৷

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button
Close
Close