in

আন্তজার্তিক বাইসাইকেল ব্র্যান্ড ইউনিরকস এবার কলকাতায়

আন্তর্জাতিক বাই-সাইকেল ব্র্যান্ড ইউনিরকস পূর্ব ভারতে তাদের প্রথম স্টোর খুলল কলকাতায় বেন্টিংক স্ট্রীটে। বলাই বাহুল্য, করোনার সময়ে যখন দুই চাকার বাহনের ব্যবহার তাত্‍পর্যপূর্ণ ভাবে বেড়েছে, তখন এই সিদ্ধান্ত নতুন ব্যবসায়িক সম্ভাবনার দিকটি ইঙ্গিত করে।

কোভিড বিশ্বমারী বিশ্বব্যাপী দুই চাকার বাহনের ক্ষেত্রে এক অভূতপূর্ব পরিস্থিতির সৃষ্টি করেছে। রাতারাতি সর্বত্র বাইসাইকেল ও ইলেকট্রিক বাইকের চাহিদা বেড়েছে। মানুষ অনেক বেশি স্বাস্থ্য সচেতন হয়েছে এবং ভারতের মতো তৃতীয় বিশ্বের দেশে সাইকেল ব্যবহার অনেক বেড়েছে। দুই চাকার বাহন এমনিতে প্রকৃতি বান্ধব আর তার উত্তরোত্তর চাহিদা বৃদ্ধি বেশ লক্ষ্য করার মতন। আধুনিক বাইকের চাহিদা বেড়েছে ৩০০% আর গত বছরের তুলনায় ৫-১০% বিক্রি বেড়েছে, যা এমনি অবস্থায় ভাবাই যায় না। শুধুমাত্র বলিউড সেলিব্রিটিরা নন, সাধারণ মানুষও এখন ফিটনেস নিয়ে ভাবছেন আর তারই ফলশ্রতি এই চাহিদা। তর্কাতীত ভাবেই বাইসাইকেল রাস্তায় যাতায়াতের ক্ষেত্রেও খরচের দিক থেকে সস্তা এবং সুস্থ জীবনের ইঙ্গিত করে।

বাই-সাইকেল ব্র্যান্ড ইউনিরকস এর ডিরেক্টর সুবীর ঘোষ এই প্রসঙ্গে বলেন,’ এই কোভিড পরিস্থিতি বাইসাইকেল শিল্পের ক্ষেত্রে আশীর্বাদ হয়ে দাঁড়িয়েছে। এর আগে আমাদের ইউনিরকস এর বিভিন্ন প্রোডাক্ট পাওয়া যেত অন্যান্য স্টোরে। কিন্তু যেভাবে বিক্রি বেড়েছে, তাতে ভীষণ ভাবে নিজেদের স্টোর করার প্রয়োজনীয়তা অনুভব করে আমরা এগিয়েছি – আর তার ফলশ্রুতি কলকাতায় আমাদের পূর্ব ভারতের প্রথম স্টোর। যারা কিনতে চান ইলেকট্রিক বাইক বা সাইকেল, তারা সরাসরি আমাদের এই স্টোরে চলে আসতে পারেন। অতীতে আমরা আমেরিকা এবং ইউরোপের বিভিন্ন দেশে আমাদের ব্র্যান্ডের জনপ্রিয়তা দেখেছি। এখন আমরা ভারতীয় এবং এশীয় মার্কেটের নজর দিচ্ছি এবং সেই দিক থেকে এটি একটি উল্লেখযোগ্য পদক্ষেপ। একদিকে পরিবেশ বান্ধব আর অন্য দিকে স্বাস্থ্য সচেতনতা – দুই চাকার যান এর উজ্জ্বল ভবিষ্যত নিয়ে আমরা যথেষ্ট আশাবাদী।এছাড়াও ভারতীয় প্রধানমন্ত্রী শ্রী নরেন্দ্র মোদীর ‘মেক ইন ইন্ডিয়া’ ভাবনা চিন্তার সাথে সহমত হয়ে এগিয়ে চলেছি দেশীয় অর্থনীতিকে মজবুত করার লক্ষ্যে।’

ব্র্যান্ড ইউনিরকস ইউনাইটেড সাইকেল এন্ড কোম্পানীর অন্তর্গত, ভারতের দু চাকার যানের ক্ষেত্রে অন্যতম একটি বড় ব্র্যান্ড, যা ফিনল্যান্ড, সুইডেন, পোল্যান্ড এর মত দেশে বাইসাইকেল এবং ইলেকট্রিক বাইক রফতানি করে যাচ্ছে অনেক দশক ধরে। বর্তমানে সংস্থাটি ইংল্যান্ডে পুরোদস্তুর কাজ করছে এবং লন্ডনে একটি অফিসও রয়েছে। সাধ্যের মধ্যে সুপারবাইক আনার ক্ষেত্রে ভারতে ইউনিরকস অগ্রসর হয়েছে। ভালো বাইক এবং সাইকেলের ক্ষেত্রে আরামদায়ক অভিজ্ঞতা – এর মধ্যেই ইউনিরকস এর বাইসাইকেল ব্যবহার করছেন পোল্যান্ড, জার্মানি, ফিনল্যান্ড, ইতালি,স্পেন, হল্যান্ড, স্লোভেনিয়া, ক্রোয়েশিয়া, রোমানিয়ার মত দেশের মানুষ। বলাই বাহুল্য, পূর্ব ভারতে তথা কলকাতায় নতুন একটি ষ্টোর শুধু ব্যবসায়িক সম্ভাবনা নয়, তার সাথেও পরিবেশ বান্ধব যান ও স্বাস্থ্য সচেতনতার ক্ষেত্রেও ইতিবাচক ভূমিকা পালন করবে।

What do you think?

Written by Bongo Baarta Desk

Comments

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Loading…

0

মমতার সঙ্গে দেখা করতে আসছেন বিনয় তামাং

এইচসিজি ইকেও ক্যান্সার সেন্টার কঠিন ম্যেলয়েড লিউকোমিয়ায় আক্রান্ত এক তরুনীর নতুন জীবন দিল বোন ম্যারো প্রতিস্থাপন চিকিৎসার মাধ্যমে